১৩ বছর পরে ফিদেলের দেশে

২০০৫ সালের পর আবার কিউবায় এসেছি। এর মধ্যে এ দেশে বেশ কয়েকটি বড় পরিবর্তনের ঘটনা ঘটেছে। ফিদেল গুরুতর অসুস্থ হয়েছেন, ক্ষমতা থেকে বিদায় নিয়েছেন, মৃত্যুবরণ করেছেন। সম্প্রতি রাউল কাস্ত্রো ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। নতুন মুখ ক্যানাল গ্রহণ করেছেন কিউবা সরকারপ্রধানের দায়িত্বভার। ২০০৮-এর পর কয়েক দফা অর্থনৈতিক সংস্কার হয়েছে। গতবার হাভানায় ফিদেলের কোনো বড় ছবি, বিলবোর্ড, কিংবা তাঁর নামে নামকরণ দেখিনি। ভেবেছিলাম তাঁর মৃত্যুর পর হয়তো এসব ঘটনা ঘটবে। না, শহরে…বিস্তারিত

অর্থবছর পরিবর্তন করুন

সাধারণ বছর আর অর্থবছর এক নয়। দেশের হিসাব-নিকাশ, রাষ্ট্রীয় আয়-ব্যয় পরিকল্পনা অর্থবছর ধরেই হয়। বছরের শুরু ও শেষ পূর্বনির্ধারিত, কারও পরিবর্তন করার ক্ষমতা নেই, কিন্তু অর্থবছর পরিবর্তন করা যায়। গত কয়েক দশকে বহু দেশ প্রয়োজন অনুযায়ী এর পরিবর্তন করেছে। বাংলাদেশে কোনো পরিবর্তন হয়নি। এখনো ব্রিটিশ ও পাকিস্তান আমল থেকে পাওয়া অর্থবছরই অনুসরণ করা হচ্ছে। জুলাই মাসে অর্থবছর শুরু হয়, শেষ হয় জুন মাসে। সে জন্য প্রতিবছর জুন মাসে সেই অর্থবছরের…বিস্তারিত

উন্নয়নের ধারা ও বাজার নির্বাচন

দেশের সব প্রতিষ্ঠানের ওপর পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বর্তমান সরকার বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে ক্ষমতাধর সরকার হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠা করেছে। বিশেষত ২০১৪ সালের একতরফা নির্বাচনের পর থেকে গত পাঁচ বছর এই ক্ষমতা একচ্ছত্রকরণ অতীতের সব রেকর্ড অতিক্রম করেছে। সরকার সর্বস্তরে একচেটিয়া ক্ষমতা ও নিয়ন্ত্রণ, দমন-পীড়নকে যৌক্তিকতা দেওয়ার চেষ্টা করেছে ‘উন্নয়ন’ যাত্রার ছবি উপস্থিত করে। বর্তমান সরকার উন্নয়নের যে ধারা জোরদার করেছে, সেই ধারা বা উন্নয়ন মডেল কোনো নতুন মডেল নয়; এটি…বিস্তারিত

সুন্দরবন রক্ষায় বৈশ্বিক সংহতি

বাংলাদেশে মানুষের সঙ্গে সঙ্গে সর্বপ্রাণ প্রকৃতি পরিবেশ বহুভাবে আক্রান্ত। লুণ্ঠনমুখী উন্নয়নধারা নিশ্চিত করতে মানুষের চিন্তা, মতপ্রকাশ, সংগঠন, সমাবেশসহ সব তৎপরতার ওপর ভয়াবহ নিপীড়নমূলক চাপ জারি রাখা হয়েছে। গুম–খুন, আটক, হয়রানি নতুন নতুন রেকর্ড করেছে গত কয়েক বছরে। রাজনৈতিক নানা বিতর্ক আর জাতীয় নির্বাচন নিয়ে হুলুস্থুলের আড়ালে চাপা পড়ে যাচ্ছে মানুষ ও প্রকৃতিবিনাশী নানা আয়োজন। দেশ ইতিমধ্যে নিপীড়িত উদ্বাস্তু রোহিঙ্গা মানুষের অবিরাম প্রবাহে বিপর্যস্ত। কিন্তু সুন্দরবনবিনাশী রামপাল প্রকল্প, দেশবিনাশী রূপপুর প্রকল্পসহ…বিস্তারিত

নিম্ন মজুরি এবং মালিকপক্ষের চার যুক্তি

আমাদের আশঙ্কাই সত্যি হলো। সরকার পোশাক খাতে নিম্নতম মজুরি নির্ধারণ করেছে মাত্র ৮ হাজার টাকা, যা বিভিন্ন শ্রমিকসংগঠনের দাবির ৫০ শতাংশ, মূল মজুরি বাড়ানো হয়েছে ১ হাজার ১০০ টাকা। আর এই বৃদ্ধির অজুহাতে আবার মালিকদের নানাবিধ সুবিধা আরও বাড়ানো হয়েছে। আগের অনেক কম মজুরির পরিপ্রেক্ষিতে ঘোষিত মজুরি বৃদ্ধি হিসেবেই হাজির করা হচ্ছে। কিন্তু নিম্ন মজুরি-নিম্ন উৎপাদনশীলতার ফাঁদ থেকে বাংলাদেশের শিল্প খাতকে মুক্ত করার জন্য দরকার ছিল একটি নতুন যাত্রা, অন্তত…বিস্তারিত

শহিদুল আটক ও সরকারের কাছে চারটি প্রশ্ন

ঘটনাটা আরও অনেক ঘটনার মতোই। রাতে কোনো সময় কিংবা ভোরে মাইক্রোবাসসহ দলে–বলে এসে ত্রাস সৃষ্টি, হুমকি-ধমকি ও জোরজবরদস্তি করে ডিবি পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া। এরপর প্রথমে অস্বীকার করা, পুলিশের নির্লিপ্ত ভাব, কয়েক ঘণ্টা বা কিছুদিন পর গ্রেপ্তার দেখানো। এরপর রিমান্ড। বিশ্ববিখ্যাত আলোকচিত্রশিল্পী, শিক্ষক ও লেখক ডক্টর শহিদুল আলমের ক্ষেত্রেও এই মডেলেই কাজ হয়েছে। তবে অপহরণের দায়িত্বে নিয়োজিত ব্যক্তিদের সংখ্যা ছিল আরও বেশি। সিসিটিভি ভাঙা হয়েছে, বাড়ির প্রহরীদের বাঁধা হয়েছে। পরের…বিস্তারিত

লুম্পেন কোটিপতিদের উত্থানপর্ব

লুম্পেন কোটিপতিদের উত্থানপর্ব১৯৮০-এর দশকের প্রথম দিকে বাংলাদেশের নব্য ধনিকদের যাত্রাপথ অনুসন্ধান করে তৎকালীন সাপ্তাহিক বিচিত্রায় আমি একটি প্রবন্ধ (প্রচ্ছদকাহিনি) লিখেছিলাম, শিরোনাম ছিল ‘কোটিপতি: মেড ইন বাংলাদেশ’। সম্ভবত এর আগে বা এই সময়েই বর্তমান প্রথম আলোর সম্পাদক মতিউর রহমানের অনুসন্ধানী একটি সিরিজ প্রতিবেদন প্রকাশিত হচ্ছিল তৎকালীন সাপ্তাহিক একতায়। এর শিরোনাম ছিল ‘ধনিক গোষ্ঠীর লুটপাটের কাহিনি’। পরে এটি বই আকারে প্রকাশিত হয়েছিল। বইটি এখন বাজারে নেই, তবে এটি বাংলাদেশে ধনিক শ্রেণির উত্থানপর্ব ও তার…বিস্তারিত

ত্বকী হত্যার বিচার হতেই হবে

ত্বকী হত্যার বিচার হতেই হবেআমি প্রস্তর হয়ে মরলাম উদ্ভিদ হতেউদ্ভিদ হয়ে মরি, তো উত্থিত প্রাণেমানুষ হয়ে উঠলাম পরে, যখন সত্য উদ্ভাসিত হলোভয় কিসের? দ্বিধা কেন মৃত্যুতে? -তানভীর মুহাম্মদ ত্বকীচার দশক আগে নির্মল সেন দাবি জানিয়েছিলেন, ‘স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টি চাই।’ এত বছর পরেও এই দাবি পূরণ হয়নি। সড়ক-নৌপথে ‘দুর্ঘটনায়’, কারখানায়-বস্তিতে আগুন লেগে, দখল করা জমিতে ভবন ধসে, দূষিত পানি বা খাবার খেয়ে, কাজের খোঁজে বেপরোয়া হয়ে বিদেশে যাওয়ার পথে, হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায়, নিরাপত্তাহীন নির্মাণকাজে মানুষ…বিস্তারিত

সরকারের বিজয়

সরকারের ওপর থেকে নিচ পর্যন্ত বিজয়ের সুর। এ বিজয় চিরস্থায়ী এবং অপ্রতিরোধ্য— এ রকম একটি ভাব থেকে তৈরি হয়েছে অতি আত্মবিশ্বাস। সেখান থেকে এসেছে বেপরোয়া ও থোড়াই কেয়ার মনোভঙ্গি। ভারত, চীন, রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্রসহ বৃহৎ ও প্রভাবশালী রাষ্ট্রগুলো তাদের চাহিদা পূরণ হওয়ায় খুশি,সরকারের ওপর থেকে নিচ পর্যন্ত বিজয়ের সুর। এ বিজয় চিরস্থায়ী এবং অপ্রতিরোধ্য— এ রকম একটি ভাব থেকে তৈরি হয়েছে অতি আত্মবিশ্বাস। সেখান থেকে এসেছে বেপরোয়া ও থোড়াই কেয়ার মনোভঙ্গি।…বিস্তারিত

জীবনযাত্রার অযৌক্তিক ব্যয় বৃদ্ধি কেন?

জীবনযাত্রার অযৌক্তিক ব্যয় বৃদ্ধি কেন?গত কিছুদিনে দেশের ভেতর একই সময়ে চাল, ডাল, তেল, মরিচ, পেঁয়াজ, মাছসহ অনেক পণ্যেরই দাম বেড়েছে অযৌক্তিকভাবে। বেড়েছে গ্যাস-বিদ্যুতের দাম, পরিবহন ব্যয়, বাসাভাড়া। এর একটি অংশের দাম বাজারে নির্ধারিত হয়, আর কোনোটির দাম নির্ধারণ বা বৃদ্ধি করে সরকার। এ দাম বৃদ্ধির কারণে দেশে সংখ্যাগরিষ্ঠ, সীমিত ও নিম্ন আয়ের মানুষদের জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়েছে, প্রকৃত আয়ের পতন ঘটছে। এর ধাক্কায় প্রান্তিক অবস্থানে থাকা মানুষেরা দারিদ্র্যসীমার নিচে পড়ে যায়। বিশাল জনগোষ্ঠীর খাদ্য ও পুষ্টিগ্রহণে নিম্নতম…বিস্তারিত

Page 4 of 25