সমুদ্রসীমা রায়: স্বস্তি ও উদ্বেগ

সমুদ্র সাধারণভাবে বিশ্বের সকল মানুষের সম্পদ। কিন্তু এই বিশ্বের সকল মানুষের এই সাধারণ সম্পদ সাম্রাজ্যবাদী কিছু রাষ্ট্র আর বহুজাতিক সংস্থার মুনাফা আর দখল তৎপরতায় ক্ষতবিক্ষত, দূষিত, বিপর্যস্ত। যে সমুদ্র অপরিমেয় সম্পদের ক্ষেত্র তা বর্তমান আগ্রাসী দখলদার বিশ্বব্যবস্থায় যুদ্ধ, ভয়ংকর গবেষণা এবং মুনাফামুখি নানা তৎপরতায় মানুষের কর্তৃত্বের বাইরে। সবল কতিপয় রাষ্ট্র ও সবল ক্ষুদ্র মুনাফাভোগী শ্রেণীর আধিপত্য এই পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। এই আগ্রাসী পরিস্থিতির মধ্যে দুর্বল দেশগুলোর জনগণকে সতর্ক থাকতে হয়,…বিস্তারিত

আর্জেন্টিনার অভিজ্ঞতা এবং ‘রক্তমাখা হাত’

গত কয়েক দশক ধরে বাংলাদেশ উন্নয়নের যে ধরন, নীতি ও কর্মসূচির প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, আর্জেন্টিনা তার চরম রূপ দেখেছে ৯০ দশকে। সেসময়ে উন্নয়নের নামে সেই দেশের সম্পদ দেশি বিদেশি ধনিক গোষ্ঠীর কাছে যে হারে বিক্রি হতে থাকে সেরকম দ্রুতহারে চিলিতেও ঘটেনি। কয়েক বছরের মধ্যে শতকরা ৯০ ভাগ রাষ্ট্রীয় সম্পদ দেশের ধনিকগোষ্ঠী এবং বহুজাতিক সিটিব্যাংক, ব্যাংক বোস্টন, ফ্রান্সের সুয়েজ এবং ভিভেনদি, স্পেন এর বেপসল ও টেলিফেনিকার হাতে চলে যায়। এর…বিস্তারিত

আমরা ৯৯%, দখলমুক্ত কর বাংলাদেশ

দেশে দেশে একই শ্লোগান দিয়ে মানুষ উঠে আসছে রাস্তায়। শ্লোগানের মূল কথা দুটো; একটি, নিজের পরিচয় ঘোষণা: ‘আমরা ৯৯%’। আরেকটি, আন্দোলনের লক্ষ্য ঘোষণা: ‘দখল কর….’। কী দখল? দখল ক্ষমতার কেন্দ্র, দখল নিজের দেশ, দখল নিজের জীবন। প্রকৃত অর্থে নিজের জীবন, সম্পদ ও দেশ দখল করেছে শতকরা ১ ভাগ লুটেরা, দখলদার, যুদ্ধবাজ সন্ত্রাসী। লক্ষ্য এসব দখলমুক্ত করা। কেননা দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে।গত কয়েক মাস ধরে ইউরোপের বহু শহরে লক্ষ মানুষের…বিস্তারিত

উন্মুক্ত হওয়া আর অধীনস্থ হওয়া এক কথা নয়

ভারত বাংলাদেশকে ঘিরে কাঁটাতারের বেড়া দিয়েছে, দিচ্ছে। কাঁটাতারের বেড়ার মধ্যে বসবাস করলে খাঁচায় বসবাসের অনুভূতি হয়, আমারও তাই হচ্ছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী বন্ধুত্বের আহবান নিয়ে বাংলাদেশ সফরে আসছেন। কিন্তু খাঁচা থেকে আমরা কী করে বন্ধুত্বের হাত বাড়াবো?আমাদের সমুদ্রসীমায় ভারত দাবি জানিয়েছে, মায়ানমারও আমাদের সীমায় দাবি উপস্থিত করেছে, তাতেও মূল ভূমিকা পালন করেছে ভারতীয় বিশেষজ্ঞরাই। ভারত ও মায়ানমারের এই দাবির ফলে আমাদের সমুদ্রসীমার এক বড় অংশ হুমকির মুখে। বঙ্গোপসাগরে একদিকে ভারত…বিস্তারিত

তেল-গ্যাস নিয়ে আত্মঘাতী চুক্তি

জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব হলো বাংলাদেশের জ্বালানি নিরাপত্তা এবং শিল্প ও বিদ্যুৎসহ জনগণের স্বার্থে তার সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করা। জনগণ এই মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্ট সকল প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের বেতন ও সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছেন তাদের স্বার্থ দেখার জন্য, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবার জন্য। কিন্তু গত প্রায় দুই দশকে সরকার পরিবর্তিত হলেও এই মন্ত্রণালয়ের দেশবিরোধী ভূমিকার কোন পরিবর্তন হয়নি। তারা একের পর এক যেসব চুক্তি এবং যেসব সিদ্ধান্ত নিয়েছে তাতে লাভবান হয়েছে কতিপয় বিদেশি…বিস্তারিত

জীবন দিয়ে আনা রেমিট্যান্স ও বিপন্ন মানুষ

বিশ্ব অর্থনীতির সংকট, মধ্যপ্রাচ্যে যুদ্ধ-আগ্রাসন-বিদ্রোহ ইত্যাদি কারণে গত কিছুদিনে প্রবাসীদের কর্মসংস্থানে অনিশ্চয়তা বেড়েছে, নি:স্ব হয়ে কিংবা অনিশ্চয়তা নিয়ে ফিরে আসছেন অনেকে। রেমিট্যান্স বা প্রবাসী আয়কৃত অর্থ প্রেরণের হারেও নিম্নগতি দেখা যাচ্ছে। ঝুঁকিতে ব্যক্তি, পরিবার ও সামগ্রিক অর্থনীতি।সত্তর দশকের শেষ দিক থেকে বাংলাদেশ বিশ্বের দেশে দেশে আনুষ্ঠানিকভাবে জনশক্তি রফতানি শুরু করে। আশির দশকে এ ধারা বেগবান হয়ে ওঠে। নব্বই দশকে ব্যাপকহারে বাংলাদেশী শ্রমিক এবং পেশাজীবীরা অভিবাসিত হতে থাকেন। প্রথম দিকে বাংলাদেশের…বিস্তারিত

ক্ষুদ্রঋণ মডেল হ্যাঁ, ইউনূস না– কেন?

বাংলাদেশ ব্যাংক গ্রামীণ ব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর থেকে মুহম্মদ ইউনূসকে অপসারণের যে সিদ্ধান্ত দিয়েছেন তা নিয়ে অনেক প্রশ্ন এবং উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে। এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে মুহম্মদ ইউনূস ও বোর্ডের ৯ পরিচালকের দায়ের করা দুটো রীট আবেদন গত ৮ মার্চ হাইকোর্ট খারিজ করে দেওয়ায় সরকারের সিদ্ধান্ত এখনও বহাল আছে। অপসারণের কারণ হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংক মুহম্মদ ইউনূসের ‘বয়স অতিক্রান্ত’ বলে যুক্তি দিয়েছেন, মার্কিন-ইউরোপীয় দূত ও সংস্থার প্রতিনিধিদের কাছে জবাবদিহিতে অর্থমন্ত্রীও একই ব্যাখ্যা দিয়েছেন।…বিস্তারিত

বাংলাদেশে বিনিয়োগ ও দারিদ্র

বাংলাদেশের অর্থনীতিতে তথাকথিত ‘কালো টাকা’ বা অবৈধ পথে উপার্জিত অর্থ কিংবা অপরাধের মধ্যে উপার্জিত অর্থ, সেটার একটা বড় ভূমিকা আছে। বাংলাদেশে অপরাধমূলক তৎপরতা, অর্থনীতির একটা খুব গুরুত্বপূর্ণ অংশ। অপরাধমূলক তৎপরতার অন্তর্ভূক্ত হচ্ছে জমি দখল, রাষ্ট্রীয় বা গণসম্পদ দখল। যেমন বন-নদী-নালা-খাল-বিল-জলাশয়– এগুলি দখল করা, অপরিকল্পিত নির্মাণ, কিংবা সেগুলো বিভিন্ন ধরনের ব্যবসায়িক তৎপরতায় কাজে লাগানো। এগুলোর সাথে আবার সন্ত্রাসী তৎপরতা অবিচ্ছেদ্য। ড্রাগ, নারী পাচার, শিশু পাচার, নকল কারখানা কিংবা বিষাক্ত বিভিন্ন খাদ্য…বিস্তারিত

বাজেট: জনগণের টাকা, খরচ হবে কোথায়?

২০১০-১১ অর্থবছরের বাজেটের আয়তন ১,৩২,১৭০ হাজার কোটি টাকা। গত বছরের সংশোধিত বাজেটের তুলনায় এটি প্রায় ২২ হাজার কোটি টাকা বেশি। এর মধ্য বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি ধরা হয়েছে ৩৮ হাজার কোটি টাকা। সরকারের কর ও কর-বহির্ভূত আয় ধরা হয়েছে ৯২,৮৪৭ কোটি টাকা, আগের বছর সরকারের এই আয় ছিল ৭৯,৪৬১ কোটি টাকা। তার মানে এই বছরে সরকারের বর্ধিত আয় ধরা হয়েছে ১২ হাজার কোটি টাকা।ছোট গাড়ি, সিগারেট, জুস ইত্যাদির শুল্কবৃদ্ধির প্রস্তাব করা…বিস্তারিত

গ্যাস ও বিদ্যুতের সংকট: সমাধান সম্ভব, তবে...

গ্যাস ও বিদ্যুতের সংকটে শিল্পকারখানা ও জনজীবনসহ সব পর্যায়ে ভোগান্তির মাত্রা কী দাঁড়িয়েছে, সে সম্পর্কে বর্ণনা অনাবশ্যক। প্রধানমন্ত্রী ও জ্বালানিমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘রাতারাতি এর সমাধান হবে না।’ রাতারাতি কেউ সমাধান চায়ওনি; রাতারাতি কেন, এই সরকারের এক বছর ক্ষমতাকালে এই সমস্যার স্থায়ী সমাধানও কেউ প্রত্যাশা করেনি। কিন্তু মানুষ এটা নিশ্চয়ই বিচার করছে যে এ খাতে গত দু-তিন সরকারের আমলে গৃহীত নীতি (পলিসি) ও দুর্নীতির কারণে যে সংকটের সৃষ্টি, এর সমাধানে…বিস্তারিত

Page 24 of 25