ভারত বাংলাদেশে কী চায়?

এরকম ধারণা সমাজে এখন বেশ জোরদার যে, ভারত বাংলাদেশের বর্তমান সরকারকে ক্ষমতায় টিকিয়ে রাখতে সকল সমর্থন প্রদান করেছে, তারা তাদের গোয়েন্দা সংস্থাসহ সবধরনের প্রতিষ্ঠানকে এই কাজে আগের চাইতে অনেক বিস্তৃতভাবে নিয়োজিত করেছে। সেকারণে দেশ ও বিদেশের সকল মত অগ্রাহ্য করে সরকার একতরফা নির্বাচন করতে সক্ষম হয়েছে। এতো বাধাবিপত্তির মধ্যে এরকম নির্বাচন সম্পন্ন করার জন্য যে মনোবল দরকার ছিলো তার অন্যতম যোগানদার ভারত। ভারতের সাহসেই এটা সম্ভব হয়েছে। সফলভাবে সরকারও গঠিত…বিস্তারিত

মুক্তিযুদ্ধ ও ইসলাম কারও একার নয়

যেভাবে নির্বাচন হলো, তা নিয়ে আর কি কথা বলার কিছু আছে? ১৯৮৮, ১৯৯৬ সালে নির্বাচনের সব উপাদানই এ বছর আরও বেশি করে ছিল। আগের ওই দুই বছরের মতো এবারও কাগজপত্রে সংখ্যার জালিয়াতি পাওয়া যাবে অনেক। এর মধ্য দিয়ে ২০০১ সালে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরে আওয়ামী লীগের কৃতিত্ব ঢাকা পড়ে গেল। ইতিহাসে এরশাদ ও খালেদার সঙ্গে জাল নির্বাচনের একই ধারায় হাসিনার নামও যুক্ত হলো। এ রকম একটি নির্বাচনের পক্ষে মন্ত্রী-সাংসদ ও কতিপয়…বিস্তারিত

Bangladesh garments: Crisis and challenges

Bangladesh garments, the US$20 billion industry and the largest export earning sector of the country, have gone through very difficult time in 2013. The year began with the wound of horrific fire on 23 November 2012, which turned more than one hundred workers along with the factory into ashes. The factory, owned by Tazreen Fashions Ltd., used to make clothing for several retailers around the globe including Wal-Mart, Sears and…বিস্তারিত

সমস্যা কি দুই নেত্রী নিয়ে?

হরতাল, অবরোধ, বোমা, আগুন, গুলি, ক্রসফায়ার, গাছকাটা, সম্পদ ধক্ষংস, অচলাবস্থা, নিরাপত্তাহীনতা আর অনিশ্চয়তার মধ্যে মানুষ আরও ডুবছে, ডুবতে যাচ্ছে দেশ। এর মধ্যে ১৯৮৮ ও ১৯৯৬ এর রেকর্ড ছাড়িয়ে নির্বাচন নামের আরেকটি মহাপ্রহসন জোরকদমে এগিয়ে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে দেড় শতাধিক বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত! এর মধ্যে হত্যা, চাঁদাবাজী, দখল, লুন্ঠনের দায়ে অভিযুক্ত অনেকেই আছে। এই অনির্বাচিতরাই এখন ‘নতুন’ সরকার গঠনে সক্ষম, কোন আইনগত বাধা নেই!! এতে কি বিদ্যমান সংকটের সমাধান হলো? না। আমরা…বিস্তারিত

কে জিতবে কে হারবে?

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন নির্বাচনকালীন সরকার কেন সব দৃঢ়তা আর প্রশাসনিক শক্তি নিয়ে একতরফা নির্বাচনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে? এর কারণ হতে পারে একটাই, আওয়ামী লীগ ধারণা করছে, যদি তারা সবার অংশগ্রহণে নির্বাচন নিশ্চিত করার জন্য কোনো আপসে যায়, তাহলে অন্তত প্রধানমন্ত্রী পদ থেকে শেখ হাসিনাকে সরে যেতে হবে। এটা মেনে নিতে আওয়ামী লীগের অসুবিধা কী? অসুবিধা একটাই, সে রকম পরিস্থিতিতে আওয়ামী লীগ নির্বাচনে জিতে আসার ব্যাপারে ভরসা পাচ্ছে না। যদি জনসমর্থন…বিস্তারিত

টিকফা চুক্তি: বাংলাদেশের দীর্ঘমেয়াদী বিপদ ও শৃঙ্খল

জনগণের সম্মতি না নিয়ে, নির্বাচিত সংস্থায় কোন আলোচনা না করে, উত্থাপিত কোন প্রশ্নের মীমাংসা না করে, নির্বাচনকালীন সরকারের স্বঘোষিত কর্তব্যপরিধি লংঘন করে সরকার যুক্তরাষ্ট্রের সাথে টিকফা চুক্তি স্বাক্ষর করলো। এই চুক্তির মধ্য দিয়ে ক্ষমতায় টিকে থাকার প্রতিযোগিতায় এগিয়ে থাকতে গিয়ে সরকার বাংলাদেশকে দীর্ঘমেয়াদী বিপদ ও শৃঙ্খলে ঠেলে দিলো। কেন সে বিষয়টিই এখানে সংক্ষেপে আলোচনা করছি।টিকফা বা ‘ট্রেড এন্ড ইনভেস্টমেন্ট কোঅপারেশন ফোরাম এগ্রিমেন্ট’ নামের চুক্তি এতোদিন টিফা বা ‘ট্রেড এন্ড ইনভেস্টমেন্ট…বিস্তারিত

টিকফা চুক্তি কেন নতুন শৃঙ্খল?

যদিও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কথা অনুযায়ী, বর্তমান নির্বাচনকালীন সরকারের কোনো নীতিগত সিদ্ধান্তে যাওয়ার কথা নয়, কোনো চুক্তি স্বাক্ষরও করার কথা নয়, তবু ২৫ নভেম্বর এই নির্বাচনকালীন সরকার যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে টিকফা বা ‘ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট কো-অপারেশন ফ্রেমওয়ার্ক এগ্রিমেন্ট’ চুক্তি স্বাক্ষর করতে যাচ্ছে। এটা এমন এক চুক্তি, যা দেশের অর্থনীতি ও রাজনীতিকে দীর্ঘ মেয়াদে আরও কঠিন শৃঙ্খল, আর্থিক ক্ষতি ও বাধ্যবাধকতার মধ্যে নিয়ে যাবে। যদিও যুক্তরাষ্ট্রের আগ্রহ, চাপ ও খসড়া দিয়েই চুক্তিটি…বিস্তারিত

মওলানা ভাসানীর ‘খামোশ’

‘মওলানা ভাসানী’ বলে যাকে আমরা চিনি সে ব্যক্তির প্রকৃত নাম তা নয়। তাঁর আসল নামে এই দুই শব্দের কোনটিই ছিল না। মওলানা ও ভাসানী এই দুটো শব্দই পরবর্তীসময়ে তাঁর অর্জিত পদবী বা বিশেষণ। ‘মওলানা’ তাঁর ধর্মবিশ্বাস ও চর্চার পরিচয়, আর ‘ভাসানী’ সংগ্রাম ও বিদ্রোহের স্মারক। তাঁর জীবন ও তৎপরতা এমনভাবে দাঁড়িয়েছিলো যাতে পদবী আর বিশেষণের আড়ালে তাঁর আসল নামই হারিয়ে গেছে। আসলে তাঁর নাম ছিল আবদুল হামিদ খান। ডাক নাম…বিস্তারিত

বিষচক্রের ফাঁদে বাংলাদেশ

দুই ধরনের বিষচক্রের ফাঁদে পড়েছে বাংলাদেশ। দুটি চক্র আবার নানাভাবে পরস্পর যুক্ত। একটি চক্র দেখা যায় প্রধানত অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে, অন্যটি রাজনৈতিক বলয়ে। অর্থনৈতিক ক্ষেত্রের বিষচক্র হলো: চুরি-দুর্নীতি-দখল থেকে রাজনৈতিক ক্ষমতা, সেখান থেকে আরও দখল-চুরি-দুর্নীতি, এ থেকে আরও বড় ক্ষমতার প্রভাব, সেখান থেকে চুক্তি কমিশন, তা থেকে চোরাই টাকা, আরও দখল-লুণ্ঠনের ক্ষমতা ইত্যাদি। এটি চক্র হলেও একই বৃত্তে আটকে থাকে না। ক্রমান্বয়ে তা বাড়তে থাকে এবং আরও বেশি মাত্রায় লুট ও…বিস্তারিত

কী হবে বাংলাদেশের?

কী হবে বাংলাদেশের?আতংকের সমাজ, দখলদার অর্থনীতি, জমিদারী রাজনীতি এটাই বর্তমান সময়ের প্রধান পরিচয়। এর মধ্যেই আমরা ‘আছি’। বর্তমানে সারাদেশে দুর্নীতি দখলদারিত্ব, নানা অগণতান্ত্রিক আইনী বেআইনী তৎপরতা, সন্ত্রাস-টেন্ডারবাজি, নিয়োগ বাণিজ্য ইত্যাদি বিস্তারের সুবিধাভোগী খুবই নগণ্য। যদি সামনে বিএনপি জামায়াত বিশেষত যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের বিষয় না থাকতো তাহলে যারা আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়েছে তাদের ক্ষোভেই সরকার টালমাটাল হতো। আওয়ামী লীগ সরকারের জন্য এটাই আত্নরক্ষার প্রধান অবলম্বন। ক্ষুব্ধ সমর্থকদের ধরে রাখায় বিএনপির-জামাতের ভয়, যুদ্ধাপরাধীদের অস্তিত্ব তাদের…বিস্তারিত

Page 22 of 27